মেনু নির্বাচন করুন
প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর এর অধীন মাঠ প্রশাসনে জেলা পর্যায়ের অফিস হলো জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস, সিলেট। সিলেট নগরীর তালতলা এলাকায় এর অবস্থান। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার হচ্ছে অফিস প্রধান। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর ও বাধ্যতামুলক প্রাথমিক শিক্ষা বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ ইউনিট এর সমস্ত নির্দেশনা বাস্তবায়নের পাশাপাশি সরকারি বেসরকারি এবং কমিউনিটি ও কিন্ডার গার্টেন পর্যায়ের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের নানাবিদ কাজকর্মসহ বহুমুখী সেবা প্রদান করে থাকে। এ অফিসের অধীন ১৩টি উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের সমস্ত কার্যক্রম তদারকিসহ সিদ্ধান্ত প্রদান করা হয়ে থাকে।

সাধারণ তথ্য

সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক নিয়োগ, পদোন্নতি, শিক্ষকদের বদলী, ইবি-ক্রস, সাধারণ ভবিষ্যৎ তহবিল অগ্রিম/চূড়ান্তভাবে উত্তোলনের অনুমতি, ছুটি মঞ্জুরী, বিভাগীয় মামলা, শিক্ষকদের পেনশন, অবসর উত্তর ছুটি ইত্যাদি। বিদ্যালয়ের অবকাঠামো উন্নয়ন কাজ তদারকী। প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার আয়োজন ও ফলাফল প্রস্তুতকরণ। প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সকল ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে বিনামূল্যে পাঠ্যপুস্তক বিতরণ। বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল টুর্নামেন্ট এবং বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিব গোল্ডকাপ প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল টুর্নামেন্ট আয়োজন।

সাংগঠনিক কাঠামো

কর্মকর্তাবৃন্দ

ছবিনামপদবিফোনমোবাইলইমেইল
মোঃ নুরুল ইসলামজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার০৮২১-৭১৭৪৫৩০১৭৪২৪৮০২০১dpeosylhe@gmail.com
মোহাম্মদ আমিরুল ইসলামসহকারি জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার০৮২১-৭১৭৪৫৩০১৭১১৯৬৪২৮৪dpeosylhe@gmail.com
মোহাম্মদ দেলোয়ার হোসেনমনিটরিং অফিসার (উপবৃত্তি)01712687867dpeosylhe@gmail.com
মো হাসান আলীসহকারি মনিটরিং অফিসার০৮২১৭১৭৪৫৩০১৭১৯৩৭৯১৮৪dpeosylhe@gmail.com

কর্মচারীবৃন্দ

ছবিনামপদবি
মোঃ সহিদুল ইসলামউচ্চমান সহকারি
মোহাম্মদ মোশারফ হোসেনঅফিস সহকারি কাম কম্পিটার অপারেট
মোঃ মুজিবুর রহমানক্যাশিয়ার
মোঃ গোলাম মোস্তফাঅফিস সহকারি কাম কম্পিটার অপারেট
মো: মাহবুব উল করিম খানকম্পিউটার অপারেটর
মো: তুলা মিয়াগাড়ীচালক
মো: আনোয়ার মিয়াএম.এল.এস.এস

প্রকল্পসমূহ

প্রাথমিক শিক্ষার জন্য উপবৃত্তি প্রকল্পের আওতাধীন অত্রজেলার ১২টি উপজেলার উপবৃত্তির চাহিদা প্রদান ও অর্থ বিতরণের সমস্ত কার্যক্রম তদারকি এ অফিসের মাধ্যমে করে থাকে। এর জন্য ১জন মনিটরিং অফিসার নিয়োজিত আছেন।

 

উপজেলা পর্যায়ে জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার ও উপজেলা শিক্ষা অফিসার কর্তৃক উদ্বুদ্ধকরণের মাধ্যমে এলাকার ধনী ব্যক্তিদের সহায়তায় তাদের নিজ উদ্যোগে স্কুল ফিডিং কার্যক্রম চলমান রয়েছে। এ অফিসের মাধ্যমে উপজেলা শিক্ষা অফিসারগণ তা তদারকি করে থাকে।

যোগাযোগ

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস

তালতলা, সিলেট।

টেলিফোন: ০৮২১-৭১৭৪৫৩

মোবাইল: ০১৭১৮-৮৯১০১৩

ইমেইল- dpeosylhe@gmail.com

কী সেবা কীভাবে পাবেন

ক্রমিক

নং

সেবা প্রদানকারী অফিসের নাম

সেবার নাম

দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা / কর্মচারী

সংক্ষিপ্ত সেবা প্রদান পদ্ধতি

সেবা প্রাপ্তির প্রয়োজনীয় সময়

প্রয়োজনীয় ফি / ট্যাক্স / আনুষাঙ্গিক খরচ

সংশ্লিষ্ট আইন-কানুন

/ বিধি-বিধান/ নীতিমালা

নির্দিষ্ট সেবা পেতে ব্যর্থ  হলে পরবর্তী প্রতিকারকারী কর্মকর্তা

০১

 

১. উপজেলা শিক্ষা অফিস

 

২. জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস

 

৩. বিভাগীয় উপ-পরিচালকের কার্যালয়

 

৪. অধিদপ্তর

 

 

শিক্ষক বদলি

ক্ষেত্রমতে:

 

. উপজেলা শিক্ষা অফিসার (একই উপজেলার মধ্যে)

 

. জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার (একই জেলার বিভিন্ন উপজেলার মধ্যে)

 

৩. বিভাগীয় উপ-পরিচারক (একই বিভাগের বিভিন্ন জেলার মধ্যে)

 

৪.  মহাপরিচালক     ( বিভিন্ন বিভাগের মধ্যে)

 

 

শিক্ষকবৃন্দ বদলির জন্য যে সকল ক্ষেত্রে আবেদন করেন: () একই উপজেলার/ থানার বিভিন্ন সরকারি প্রাথমিক  বিদ্যালয়ে () একই জেলার মধ্যে আন্ত: উপজেলার/ থানার বিভিন্ন সরকারি প্রাথমিক  বিদ্যালয়ে () একই বিভাগের বিভিন্ন জেলার ভিন্ন ভিন্ন উপজেলার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এবং () ভিন্ন বিভাগের বিভিন্ন জেলার বিভিন্ন উপজেলার ভিন্ন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। সে অনুযায়ী প্রত্যেক ক্ষেত্রে বদলির সুনির্দিষ্ট কারণ উল্লেখ করে উপযুক্ত কর্তৃপক্ষের নিকট প্রধান শিক্ষক এবং সংশ্লিষ্ট ক্লাস্টারের সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসারের মাধ্যমে আবেদন উপজেলা শিক্ষা অফিসারের দপ্তরে দাখিল করতে হয় । শূণ্যপদ থাকা এবং বদলির নীতিমালা পূরণ সাপেক্ষে একই উপজেলার মধ্যে উপজেলা শিক্ষা অফিসার, জেলার ভিন্ন উপজেলার মধ্যে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার, একই বিভাগের ভিন্ন জেলার ভিন্ন উপজেলায় বিভাগীয় উপ- পরিচারক এবং  ভিন্ন বিভাগের ক্ষেত্রে মহাপরিচালক বদলির আদেশ জারি করেন। তবে মহাপরিচালক ব্যতীত অন্যান্য সকল পর্যায়ে বদলির জন্য পরবর্তী উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিতে হয়। বিভিন্ন পর্যায়ের শিক্ষক বদলির এ ক্ষমতা বিশেষ কারণে বা বিশেষ প্রজ্ঞাপন জারি করে পরিবর্তন করা হয়।

১. উপজেলার মধ্যে  ২-৩ দিন

 

২. জেলার মধ্যে ৫-৭ দিন

 

৩. বিভাগের মধ্যে ৮-১২ দিন

 

৪. এক বিভাগ হতে অন্য বিভাগে ১৪-২০ দিন

বিনামূল্যে

Teacher Transfer rule (Ammenmend)-2011

 

নীতিমালাটি প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর (www.dpe.gov.bd) এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ওয়েব সাইটে (www.mopme.gov.bd) পাওয়া যাবে।

. উপজেলার ক্ষেত্রে  জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার

 

. জেলার ক্ষেত্রে বিভাগীয় উপ-পরিচালক

 

. বিভাগের ক্ষেত্রে মহাপরিচালক

০২

১. উপজেলা শিক্ষা অফিস

 

২. জেলা প্রথমিক শিক্ষা অফিস

 

৩. উপজেলা/জেলা হিসাব রক্ষণ অফিস

শিক্ষকদের পেনশন

. উপজেলা শিক্ষা অফিসার (ইউইও)

 

. জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার (ডিপিইও)

 

৩. উপজেলা/জেলা হিসাব রক্ষণ অফিসার

সংশ্লিষ্ট শিক্ষককে প্রয়োজনীয়  কাগজপত্র দাখিলের জন্য ১ মাস পূর্বে উপজেলা শিক্ষা অফিস  পত্র প্রেরণ করতে হয়। দাখিলকৃত কাগজপত্র শিক্ষা অফিসের সংশ্লিষ্ট অফিস সহকারী যাচাই করে উচ্চমান সহকারীর নিকট উপস্থাপন করেন, উচ্চমান সহকারী  উপজেলা শিক্ষা অফিসারের নিকট উপস্থাপন করেন। উপজেলা শিক্ষা অফিসার যাচাই করার পর স্বাক্ষর করে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে প্রেরণ করেন। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসেও একইভাবে বিভিন্ন পর্যায়ে যাচাই হয়ে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার পেনশন মঞ্জুর করে সংশ্লিষ্ট উপজেলা/ জেলা হিসাবরক্ষণ অফিসে মঞ্জুরি পত্র প্রেরণ করেন এবং সংশ্লিষ্ট উপজেলা শিক্ষা অফিসসহ পেনশনারকেও কপি দেয়া হয়। পরবর্তীতে উপজেলা হিসাবরক্ষণ অফিস হতে বিল পাশ করে ব্যাংকে প্রেরণ করে পেনশন নিষ্পত্তি করা হয়।

আবেদনের পর থেকে ১৩- ১৫ দিন

 

বিনামূল্যে

. সরকারি কর্মচারী পেনশন নীতিমালা ১৯৭৪

. পেনশন সহজিকরণ আইন, ১৯৮৫

. জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার

 

২. মহাপরিচালক (বিশেষ ক্ষেত্রে)

০৩

উপজেলা শিক্ষা অফিস

সকল শিশুর মাঝে বিনামূ্ল্যে পাঠ্যবই বিতরণ

১.  উপজেলা শিক্ষা অফিসার

 

২.  সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার

উপজেলাতে বই প্রাপ্তির পূর্বে উপজেলা বই বিতরণ কমিটির সভা করা হয়। তারপর উপজেলা/ থানাতে সরাসরি প্রাপ্ত বই রেজিস্টারে এন্ট্রি দেয়া হয় এবং বিদ্যালয় থেকে প্রকৃত ছাত্র-ছাত্রী সংখ্যানুযায়ী প্রধান শিক্ষকদের দাখিলকৃত চাহিদামোতাবেক বই বিতরণের একটি সূচি তৈরি করে নোটিশ বোর্ডে টাংগিয়ে দেয়া হয় এবং প্রধান শিক্ষকদের অবহিত করা হয়। নির্ধারিত সূচি অনুযায়ী প্রধান শিক্ষকদেরর নিকট বই বিতরণ করা হয় । প্রধান শিক্ষকগণ বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটি (এসএমসি) ও অন্যান্যদের উপস্থিতিতে শিক্ষার্থীদের/ অভিভাবকদের নিকট শিক্ষা বৎসরের ১ম কর্ম দিবসে বই বিতরণ করেন।

 

১২-১৫ দিন

 

(১৫-৩১ ডিসেম্বর এর মধ্যে বিদ্যালয়ে এবং শিক্ষা বৎসরের ১ম কর্মদিবসে শিশুদের মাঝে বিতরণ করতে হয়)

 বিনা মূল্যে

বই বিতরণ নীতিমালা মোতবেক

 

(প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কারিকুলাম অনুসরণ করে পাঠদান করা হয় এমন প্রতিটি বিদ্যালয়ের প্রতিটি শিশুকে (সকল শ্রেণির) সবগুলো নতুন বই সরবরাহ করা হয়।)

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার

 

০৪

১. উপজেলা/থানা শিক্ষা অফিস

 

২. দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যাংক

 

৩. প্রাথমিক বিদ্যালয়

উপবৃত্তি প্রদান

১. উপজেলা নির্বাহী অফিসার

 

২. উপজেলা শিক্ষা অফিসার

 

৩. সংশ্লিষ্ট ব্যাংক

 

৪.  প্রধনি শিক্ষক

 

৫.  বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটি (এসএমসি)

প্রতি বছর মার্চ মাসে বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটি (এসএমসি) - এর সভার মাধ্যমে ১ম শ্রেণির জন্য সুবিধাভোগী পরিবার নির্বাচন করা হয় এবং অভিভাকদের সাধারণ সভার মাধ্যমে তা অবহিত করা হয়। প্রতি বছর সমাপণী পরীক্ষার পর ৫ম শ্রেণির সুবিধাভোগী শিশুর অভিভাবক উপবৃত্তির সুবিধাভোগির তালিকা থেকে বাদ যায় এবং ১ম শ্রেণির অভিভাবকগণ অন্তর্ভূক্ত হয়। সুবিধাভোগী ছাত্র-ছাত্রীদের ৮৫% উপস্থিতি এবং পরীক্ষায় পাশ নম্বর পাওয়ার উপর ভিত্তি করে শিক্ষকগণ নির্ধারিত ফরমেটে প্রত্যেক উপযুক্ত সুবিধাভোগী ছাত্র-ছাত্রীর নামে চাহিদা প্রণয়ন করে এসএমসি-এর সভাপতির স্বাক্ষরসহ উপজেলা শিক্ষা অফিসে দাখিল করেন। উপজেলা শিক্ষা অফিসার বিল প্রস্তুত করে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের স্বাক্ষর নিয়ে উপবৃত্তি বিতরণের জন্য নির্ধারিত ব্যাংকে প্রেরণ করেন। ব্যাংক ম্যানেজার উপজেলা শিক্ষা অফিসারের সাথে পরামর্শ করে উপবৃক্তি বিতরণের সূচি নির্ধারণ করেন এবং শিক্ষকদের মাধ্যমে অভিভবকদের অবহিত করেন। পরে ৩/৪ টি বিদ্যালয়ের সুবিধাভোগী অভিভাবকদের ( ছাত্র-ছাত্রীর মা ) উপস্থিতিতে ব্যাংকের প্রতিনিধি মাস্টার রোলের মাধ্যমে উপবৃত্তির টাকা বিতরণ করা হয়।

বরাদ্দপত্রে উল্লিখিত সময়ের মধ্যে, সাধারণত প্রতি ৪র্থ মাসের প্রথম ১০ দিনের মধ্যে

বিনামূল্যে

প্রাথমিক শিক্ষার জন্য উপবৃত্তি প্রকল্পের নির্ধারিত নীতিমালা । অর্থা‍ৎ প্রতি মাসে এক সন্তানের জন্য ১০০ টাকা এবং একাধিক সন্তানের জন্য ১২৫ টাকা হারে অভিভাবককে দেয়া হয়।

১.  উপজেলা শিক্ষা অফিসার

২.  উপজেলা নির্বাহী অফিসার

0

১.  উপজেলা শিক্ষা অফিস

 

২.  জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস

সহকারী শিক্ষক হতে প্রধান শিক্ষক পদে পদোন্নাতি

১. জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার

 

২. উপজেলা শিক্ষা অফিসার

 

৩ বছরের এসিআর সহ পদোন্নতির আবেদন উপজেলা শিক্ষা অফিসে দাখিল করতে হয়। উপজেলা শিক্ষা অফিসার জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে নির্ধারিত কোটা অনুযায়ী ( প্রধান শিক্ষকের বিদ্যমান শূন্যপদের ৬৫%) পদোন্নতির জন্য উপজেলা পদোন্নতি কমিটিতে উপস্থাপন করেন। কমিটির সিদ্ধান্ত মোতাবেক পদোন্নতির জন্য নির্বাচিতদের তালিকা জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের নিকট অনুমোদনের জন্য প্রেরণ করা হয়। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার তালিকা অনুমোদন ও পদোন্নতির  আদেশ জারি করেন।

১২-১৫ দিন

(শূণ্যপদ থাকা সাপেক্ষে প্রতি ৩-৬ মাস পরপর পদোন্নতির কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়)

বিনামূল্যে

পদোন্নতির নীতিমালা (বর্তমান নীতিমালা অনুযায়ী প্রধান শিক্ষকের বিদ্যমান শূন্যপদের ৬৫% কোটায় পদোন্নতির বিধান রয়েছে)

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার, মহাপরিচালক

০৬

১.  উপজেলা শিক্ষা অফিস

 

২. উপজেলা/জেলা হিসাব রক্ষণ অফিস

শিক্ষকদের বেতন

১. উপজেলা শিক্ষা অফিসার

 

২.. উপজেলা হিসাব রক্ষণ অফিসার

প্রতি মাসের ১১ তারিখে সমন্বয় সভায় প্রধান শিক্ষকগণ নির্ধারিত ছকে সকল শিক্ষকের হাজিরা বিবরণী সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসারের মাধ্যমে উপজেলা শিক্ষা অফিসারের নিকট দাখিল করেন এবং সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার সংশ্লিষ্ট মাসে যে সকল শিক্ষক বেতন প্রাপ্ত হন তাঁদের ব্যাপারে একটি প্রতিবেদন উপজেলা শিক্ষা অফিসারের নিকট দাখিল করেন । উপজেলা শিক্ষা অফিসার যাচাই  করে বেতন প্রস্তুতের জন্য সংশ্লিষ্ট অফিস সহকারীকে নির্দেশনা দেন । বিল প্রস্তুতের পর উপজেলা শিক্ষা অফিসার স্বাক্ষর করেন এবং বিলটি  ট্রেজারি ব্যাংকে প্রেরণ করেন । ব্যাংক এনড্রোর্স করে উপজেলা হিসাব রক্ষণ অফিসে প্রেরণ করে । হিসাব রক্ষণ অফিসার বিল পাশ করার পর এ্যাডভাইস দিয়ে পুনরায় ব্যাংকে প্রেরণ করেন । ব্যাংক কর্তৃপক্ষ শিক্ষকদের বেতন তাঁদের নির্ধারিত হিসাব নম্বরে জমা করে ।

৮-১২ দিন

 

 

বিনামূল্যে

বিনা অনুমতিতে অনুপস্থিত না থাকলে প্রতি মাসে স্বাভাবিক ভাবে বেতন প্রাপ্য হন।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার

 

07

১. উপজেলা  শিক্ষা অফিস

 

২. উপজেলা প্রকৌশল অফিস

বিদ্যালয় ভবন নির্মাণ

১.  উপজেলা শিক্ষা অফিসার

 

. উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি)

প্রয়োজনীয চাহিদা  / বিদ্যালয়ের কমিটি  এর আবেদনের প্রেক্ষিতে বিদ্যালয়ের নতুন ভবন নির্মাণ/ সম্প্রসারণ এর জন্য উপজেলা শিক্ষা অফিসার ও উপজেলা প্রকৌশলী অগ্রাধিকার তালিকা প্রস্তুত করে এবং উপজেলা শিক্ষা কমিটিতে উপস্থাপন করা হয়। শিক্ষা কমিটির অনুমোদনের পর উপজেলা প্রকৌশলীর প্রাক্কলনসহ প্রস্তাব প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর/ প্রধান কার্যালয় এলজিইডিতে প্রেরণ করা হয়। বিদ্যালয়ের নামে অর্থ বরাদ্দ হলে উপজেলা প্রকেৌশলী নির্ধারিত নিয়মে টেন্ডারের কার্যক্রম সম্পন্ন করে ঠিকাদারের মাধ্যমে বিদ্যালয় ভবন নির্মান কার্যক্রম সম্পন্ন করে থাকেন।

সাধারণত ৬-১২ মাস

(কাজের ধরন  এবং কার্যাদেশের শর্তানুযায়ী সময় নির্ধারণ করা হয়)

বিনামূল্যে

নির্দিষ্ট কোন আইন নাই।

 

তবে ছাত্র- ছাত্রীর তুলনায় বিদ্যালয়ের কক্ষের স্বল্পতা থাকলে বা বিদ্যালয় ভবন জরাজীর্ণ হয়ে পড়লে মাঠ সার্ভের মাধ্যমে অধিদপ্তরে নির্ধারিত ছকে তথ্য প্রেরণ করা হয়। অত:পর কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তের পর এলজিইডি কর্তৃক বাস্তবায়িত হয়।

১.  উপজেলা শিক্ষা অফিসার

২. উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি)

৩. উপজেলা নির্বাহী অফিসার

০৮

১.  উপজেলা শিক্ষা অফিস

 

২.  উপজেলা প্রকৌশল অফিস

ক্ষুদ্র-মেরামত ও সংস্কার

২. উপজেলা শিক্ষা অফিসার

 

. উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি)

 

৩.  ম্যানেজমেন্ট কমিটি (বরাদ্দ ২ লক্ষ টাকার কম হলে)

বিদ্যালয়ের ভবন জরাজীর্ণ হলে মেরামত/ সংস্কারের জন্য সরকারি নির্দেশনা/ বিদ্যালয়ের কমিটি উপজেলা শিক্ষা অফিসে আবেদন করে। উপজেলা শিক্ষা অফিসার এসএমসির আবেদন গুলো/ মাঠ সার্ভের মাধ্যমে প্রাপ্ত তালিকা শিক্ষা কমিটিতে উপস্থাপন করেন। শিক্ষা কমিটির সুপারিশের পর উপজেলা প্রকৌশলীর প্রাক্কলনসহ প্রস্তাব প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরে/ এলজিইডিতে প্রেরণ করা হয়। বিদ্যালয়ের নামে অর্থ বরাদ্দ হলে উপজেলা প্রকেৌশলী নির্ধারিত নিয়মে টেন্ডারের কার্যক্রম সম্পন্ন করে ঠিকাদারের মাধ্যমে মেরামত করে থাকেন। বরাদ্দ ২ লাখ টাকার কম হলে বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটি সভা করে নিজেদের মাধ্যমে সংস্কার কার্যক্রম বাস্তবায়ন করে থাকেন।

বরাদ্দ পত্রের শর্তানুযায়ী, ক্ষেত্রমতে   ১৫-৩০ দিন

বিনামূল্যে

সুনির্দিষ্ট কোন আইন নাই।

 

(প্রয়োজনের ভিত্তিতে সংশ্লিষ্ট  কর্তৃপক্ষের চাহিদা এবং বরাদ্দ প্রাপ্তি সাপেক্ষে  কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়)

১. উপজেলা শিক্ষা অফিসার

২.  উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি)

৩.  উপজেলা নির্বাহী অফিসার

০৯

উপজেলা শিক্ষা অফিস

বিদ্যালয়ের বিদ্যুৎ বিল/ভূমি উন্নয়ন কর প্রদান

উপজেলা শিক্ষা অফিসার

বিদ্যালয়ের বিদ্যুৎ বিলের কপি উপজেলা শিক্ষা অফিসে প্রধান শিক্ষক দাখিল করেন। বরাদ্দ সাপেক্ষে উপজেলা শিক্ষা অফিসার বিল প্রস্তুত করে উপজেলা হিসাব রক্ষণ অফিসের মাধ্যমে বিল পাশ করে বিদ্যালয়ের হিসাব নম্বরে টাকা জমা হয়। প্রধান শিক্ষক টাকা উত্তলোন করে বিল পরিশোধ করেন। অন্যদিকে বিদ্যালয়ের ভূমি উন্নয়ন করের ব্যাপারে উপজেলা ভূমি অফিস হতে বিদ্যালয় ভিত্তিক করের পরিমান জানানো হয়। সে মোতাবেক বরাদ্দ সাপেক্ষে এসি ল্যান্ডের নামে বিল করা হয় এবং উপজেলা হিসাব রক্ষণ অফিসের মাধ্যমে বিল পাশ হয়ে পরিশোধ হয়।

 ১-২ দিন

বিনামূল্যে

বিদ্যুৎ বিলের ক্ষেত্রে কর্তৃপক্ষের অনুমোদন নিয়ে বিদ্যুৎ সংযোগ নিতে হয় আর ভূমি উন্নয়ন করের ক্ষেত্রে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় হতে হবে

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার

১০

১. উপজেলা শিক্ষা অফিস

 

২. উপজেলা হিসাব রক্ষণ অফিস

শিক্ষকদের জিপিএফ লোন

১. উপজেলা শিক্ষা অফিসর

১. উপজেলা হিসাব রক্ষণ অফিসার

 

(কিস্তি এবং লোনের পরিমানের উপর ভিত্তি করে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার, বিভাগীয় উপ-পরিচালক)

উপজেলা হিসাব রক্ষণ অফিস হতে এ্যাকাউন্টস স্লিপসহ লোনের কারণ উল্লেখ করে স্বহস্তে লিখিত আবেদন সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসারের মাধ্যমে উপজেলা শিক্ষা অফিসারের নিকট দাখিল করতে হয়। উপজেলা শিক্ষা অফিসার প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিয়ে সংশ্লিষ্ট অফিস সহকারীর নিকট প্রেরণ করেন। অফিস সহকারী বিল প্রস্তুত করে দাখিল করলে উপজেলা শিক্ষা অফিসারের স্বাক্ষরের পর উপজেলা হিসাব রক্ষণ অফিসে প্রেরণ করা হয়। উপজেলা হিসাব রক্ষণ অফিসে বিল পাশ হলে ব্যাংকে গিয়ে শিক্ষক টাকা উত্তোলন করেন। ১ম লোনের ক্ষেত্রে উপরের নিয়ম অনুসৃত হয়। ২য় লোন বা বয়স ৫২ বছর হলে অফেরত যোগ্য লোনের ক্ষেত্রে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার এবং ৩য় লোনের ক্ষেত্রে বা লোনের কিস্তি বেশি হলে বিভাগীয় উপ-পরিচালকের নিকট থেকে অনুমোদন নিয়ে উপজেলা শিক্ষা অফিসের মাধ্যমে বিল করে হিসাব রক্ষণ অফিসে বিল পাশ করতে হয়।

 

 

আবেদনের পর ক্ষেত্রমতে ১-৭দিন

বিনামূল্যে

জিপিএফ বিধিমালা, ১৯৭৯

১. জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার

২. বিভাগীয় উপ-পরিচালক

৩. মহাপরিচালক 

 

(যে কর্তৃপক্ষ লোন মঞ্জুর করবেন তার পরবর্তী উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ)

১১

উপজেলা শিক্ষা অফিস

এবং জেলা প্রাথমিক শিক্ষ  অফিস

উচ্চতর পরীক্ষায় অংশগ্রহণের অনুমতি

১. উপজেলা শিক্ষা অফিসার

 

. জেলা প্রাথমিক শিক্ষ অফিসার

কর্মরত কোন শিক্ষক উচ্চত্তর ডিগ্রী অর্জনের নিমিত্ত পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার বরাবর আবেদন করে উপজেলা শিক্ষা অফিসে আবেদন দাখিল করেন। আবেদনের সাথে ভর্তির অনুমতি পত্র, প্রবেশপত্র, পরীক্ষার রুটিন, শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদ ইত্যাদি যথাযথ কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে উপজেলা শিক্ষা অফিসে দাখিল করতে হয় । সবকিছু যথাযথ থাকলে উপজেলা শিক্ষা অফিসার অনুমতির জন্য জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে প্রেরণ করেন । জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার যথাযথ মনে করলে অনুমতিপত্র জারি করেন।

আবেদনের পর ৩-দিন

বিনামূল্যে

সাধারণত: চাকুরি কমপক্ষে বছর হলে এবং বিদ্যালয়ে শিক্ষক স্বল্পতা না থাকলে অথবা প্রশাসনিক কোন বিষয়াদি না থাকলে অনুমতি দেয়া হয়।

১. জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার  

২. মহাপরিচালক (বিএ/ এমএড প্রশিক্ষণের জন্য))

১২

১. উপজেলা শিক্ষা অফিস

২. প্রাথমিক বিদ্যালয়

প্রাথমিক শিক্ষা সমাপণী পরীক্ষা

১. উপজেলা শিক্ষা অফিসা

২. প্রধান শিক্ষক

এপ্রিল মাসে উপজেলার সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে ৫ম শ্রেণির শক্ষিার্থীর তালিকা সংগ্রহ করে ডিআর (ডসেক্রপেটিভ রোল) প্রস্তুত করা হয়। উপজেলা শিক্ষা কমিটি ইউনিয়ন ভিত্তিক পরীক্ষা কেন্দ্র নির্বাচন করে। উক্ত ডি আর কেন্দ্র ভিত্তিক শিক্ষার্থীর সংখ্যা প্রাথমিক শিক্ষা অধদিপ্তরে (প্রাশিঅ) প্রেরণ করা হয়। নেপ (ন্যাশনাল একাডেমি ফর প্রাইমারি এডুকশেন) প্রশ্নপত্র তৈরি করে প্রাথমিক শিক্ষা অধদিপ্তররের মাধ্যমে উপজেলায় প্রেরণ করা হয়। প্রেরণকৃত প্রশ্নপত্র নিরাপদ হেফাজতে  (জেলা প্রশাসকের অফিসে, থানায় অথবা ব্যাংকে) রাখা হয় এবং নির্ধারিত দিনে প্রশ্নপত্র একজন কর্মকর্তার মাধ্যমে কেন্দ্রে পাঠানো হয়। অতপর প্রতিটি কেন্দ্র থেকে উত্তরপত্র সমূহ উপজেলা শিক্ষা অফিসে আনা হয়। উপজেলা শিক্ষা অফিস  উত্তরপত্রসমূহ কোডিং করে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে প্রেরণ করে। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস অন্য উপজেলার শিক্ষক দ্বারা উত্তরপত্র মূল্যায়ন করার পর ফলাফল প্রাশিঅ -এ প্রেরণ করেন। প্রাথমিক শিক্ষা অধদিপ্তর ২৫ ডসিম্বেররে মধ্যে ফলাফল প্রকাশ করে থাকে। 

 সাধারনত: নভেম্বর মাসের ৩য় সপ্তাহ থেকে পরীক্ষা আরম্ভ হয় এবং জানুয়ারি মাসের ১ম সপ্তাহে মার্কশিট অভিভাবকের হাতে পৌছেঁ

বর্তমানে পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য প্রত্যেক শিক্ষার্থীকে ৪০ টাকা করে ফি দিতে হয়

প্রাথমিক শিক্ষা সমাপণী পরীক্ষা পরিচালনা সংক্রান্ত নীতিমালা, ২০১৩

এবং

অধিদপ্তর/  মন্ত্রণালয়  কর্তৃক সময়ে সময়ে জারি কৃত  আদেশ পরিপত্র অনুযায়ী পরীক্ষা গ্রহণ করা হয়

উপজেলা শিক্ষা অফিসার

 

ক্ষেত্র বিশেষে উপজেলা নির্বাহী অফিসার/ মহাপরিচালক

১৩

১. উপজেলা শিক্ষা অফিস

২. জেলা প্রাথমিক শিক্ষ  অফিস

৩. পিটিআই

৪. বিভাগীয় উপ-পরিচালক

৫. মহাপরিচালক

বিভিন্ন প্রশিক্ষণের অনুমতি প্রদান    (সি-ইন-এড, বিএড, এমএড)

১. উপজেলা শিক্ষা অফিসার

২. জেলা প্রাথমিক শিক্ষ  অফিসার

৩. পিটিআই সুপার

৪. বিভাগীয় উপ- পরিচালক

৫. মহাপরিচালক

দেশের সরকারি পিটিআই গুলোতে বছরে ২বার সি-ইন-এড (সার্টিফিকেট ইন এডুকেশন) প্রশিক্ষণের জন্য শিক্ষকদের ভর্তি করা হয়। শিক্ষা বছর হলো জুলাই-জুন  এবং জানুয়ারি-ডিসেম্বর । প্রশিক্ষণ বিহীন শিক্ষক সংখ্যা অনুযায়ী উপজেলা ভিত্তিক প্রশিক্ষণার্থীর কোটা নির্ধারণ করে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার উপজেলা শিক্ষা অফিসারদের পত্র দেন। উপজেলা শিক্ষা অফিসার প্রশিক্ষণ বিহীন শিক্ষকদের জ্যেষ্ঠ্তার ভিত্তিতে প্রশিক্ষণে প্রেরণের জন্য শিক্ষকদের পত্র দেন। পিটিআই গুলোতে ১বছর মেয়াদি সি-ইন-এড কোর্স শেষ করলে জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা একাডেমি (নেপ) এর মাধ্যমে উত্তীর্ণদের সার্টিফিকেট প্রদান করা হয়। একইভাবে বিএড, এমএড প্রশিক্ষনের জন্য বছরের নির্ধারিত সময়ে শিক্ষকগণ মহাপরিচালক বরাবর নির্ধারিত ফরমে আবেদন করে উপজেলা শিক্ষা অফিসে দাখিল করেন। উপজেলা শিক্ষা অফিসার আবেদনগুলো জেলা ও বিভাগীয় অফিসের  মাধ্যমে প্র্র্রথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরে প্রেরণ করেন। প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর থেকে নির্বাচিতদের নামের তালিকা উপজেলা শিক্ষা অফিসারের নিকট প্রেরণ করা হয়। উপজেলা শিক্ষা অফিসারের নিকট থেকে অনুমতির কপি সংগ্রহ করে শিক্ষকগণ নির্ধারিত বিএড/এমএড প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে ভর্তি হন।

-১০ দিন

সি-ইন-এড কোর্সে: ৯০০/- থেকে ৯৫০/-

 

বিএড/এমএড কোর্সে: প্রতিষ্ঠানের নির্ধারিত হারে  ফি

১. সি-ইন-এড প্রশিক্ষণ: প্রশিক্ষণ বিহীন শিক্ষকদের জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে

২. এমএড/বিএড/ অন্যান্য: এমএড/বিএড/ অন্যান্য কোর্সের ক্ষেত্রে চাকুরির বয়স ৫ বছর হতে হয়।

 

   তাছাড়া শিক্ষককে উক্ত কোর্সে ভর্তির অনুমতি দেয়া হলে তাঁর নিজ বিদ্যালয়ের সুষ্ঠু পাঠদানের কোন ব্যাঘাত হবে কী না বিষয়টির প্রতি গুরুত্ব দেয়া হয়।

১. জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার

২. মহাপরিচালক

১৪

উপজেলা শিক্ষা অফিস

প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন

. উপজেলা শিক্ষা অফিসার (ইউইও),

. সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার (এইউইও)

 

সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নির্দেশে/ অনুমোদন    সাপেক্ষে প্রস্তুতকৃত পরিদর্শন সুচি অনুযায়ী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন করা হয়। পরিদর্শন কখনো আকস্মিক আবার কখনো পূর্বে অবহিত করে করা হয়।  প্রতিমাসে ইউইও ৫টি এবং এইউইওগণ ১০ টি করে প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন করে বিদ্যালয়সহ উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট রিপোর্ট প্রেরণ করেন।

পুরো কার্যক্রম শেষ হতে ১৬ দিন লাগে তবে পরিদর্শন করে রিপোর্ট দেয়া পর্যন্ত  ১-৩ দিন

বিনামূল্যে

বিদ্যালয় পরিদর্শন নির্দেশনা মোতাবেক

 

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার

প্রদেয় সেবাসমুহের তালিকা

২.১ বিদ্যমান নাগরিক সেবার তালিকা ( অধিদপ্তর/ বিভাগ/ জেলা/ উপজেলা পর্যায়)

সেবা ক্রমিক নং

সেবার নাম

সেবার পর্যায়

(অধিদপ্তর/ বিভাগ/ জেলা/ উপজেলা)

  1.  

শিক্ষক বদলি

অধিদপ্তর/ বিভাগ/ জেলা/ উপজেলা

  1.  

শিক্ষকদের পেনশন

উপজেলা/ থানা

  1.  

সকল শিশুর মাঝে বিনামূ্ল্যে পাঠ্যবই বিতরণ

উপজেলা/ থানা

  1.  

উপবৃত্তি প্রদান

উপজেলা/ থানা

  1.  

সহকারী শিক্ষক হতে প্রধান শিক্ষক পদে পদোন্নাতি

উপজেলা/ থানা

  1.  

শিক্ষকদের বেতন

উপজেলা/ থানা

  1.  

বিদ্যালয় ভবন নির্মাণ

উপজেলা/ থানা

  1.  

ক্ষুদ্র-মেরামত ও সংস্কার

উপজেলা/ থানা

  1.  

বিদ্যালয়ের বিদ্যুৎ বিল/ ভূমি উন্নয়ন করা প্রদান

উপজেলা/ থানা

  1.  

শিক্ষকদের জিপিএফ লোন মঞ্জুরি

অধিদপ্তর/ বিভাগ/ জেলা/ উপজেলা

  1.  

উচ্চতর পরীক্ষায় অংশগ্রহণের অনুমতি প্রদান

উপজেলা/ থানা

  1.  

প্রাথমিক শিক্ষা সমাপণী পরীক্ষায় আংশগ্রহণ

উপজেলা/ থানা

  1.  

প্রাথমিক শিক্ষা সমাপণী পরীক্ষা গ্রহণ

উপজেলা/ থানা

  1.  

বিভিন্ন প্রশিক্ষণ

উপজেলা/ থানা

  1.  

প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন

উপজেলা/ থানা

তথ্য অধিকার

সিটিজেন চার্টার

 

ক্রঃনং

প্রদেয় সেবা

সেবাগ্রহীতা

সেবা প্রাপ্তির জন্য করণীয়

সেবা প্রদানকারীর করণীয়

কার্য সম্পাদনের সময়সীমা

মন্তব্য

১.

বিনামূল্যে বই বিতরণ

অভিভাবক/শিক্ষার্থী

উশিঅ প্রয়োজনীয় চাহিদা জুলাই মাসের মধ্যে জেপ্রাশিঅ বরাবরে প্রদান নিশ্চিত করবেন।

নির্ধারিত সময়ের মধ্যে জেপ্রাশিঅ কর্তৃক উপজেলা শিক্ষা অফিসের চাহিদা ও প্রাপ্যতানুযায়ী বই পৌছানোরনিশ্চিত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

ডিসেম্বরের ১ম সপ্তাহ

 

২.

বিএড/এমএড সংক্রান্ত প্রশিক্ষণার্থীদের নামের প্রস্তাবনা

শিক্ষক/শিক্ষিকা

করণীয় নাই

এপ্রিল মাসের মধ্যে সংশ্লিষ্ট বিভাগীয় উপপরিচালক বরাবরে প্রেরণ এবং আবেদনকারীকে তা অবহিত করতে হবে।

এপ্রিল মাসের মধ্যে

 

৩.

উচ্চতর পরীক্ষায় অংশগ্রহণের অনুমতি প্রদান

কর্মকর্তা/কর্মচারী ও শিক্ষক/শিক্ষিকা

করণীয় নাই

৬নং কলামে বর্ণিত সময়ের মধ্যে শিক্ষকদের আবেদন স্বয়ং উপযুক্ত আদেশ প্রদান এবং অন্যগুলি সংশ্লিস্ট বিভাগীয় উপপরিচালক বরাবরে প্রেরণ এবং আবেদনকারীকে তা অবহিত করতে হবে।

৭(সাত) কার্যদিবসের মধ্যে

 

৪.

টাইমস্কেল-এর আবেদন নিষ্পত্তি

কর্মকর্তা/কর্মচারী ও শিক্ষক/শিক্ষিকা

করণীয় নাই

৬নং কলামে বর্ণিত সময়ের মধ্যে উপযুক্ত আদেশ জারি করতে হবে।

৭(সাত) কার্যদিবসের মধ্যে

 

৫.

পদোন্নতি প্রদান

প্রধান শিক্ষক

করণীয় নাই

৬নং কলামে বর্ণিত সময়ের মধ্যে উপযুক্ত আদেশ জারি করতে হবে।

১৫(পনের)কার্যদিবসের মধ্যে

 

৬.

দক্ষতাসীমা-র আবেদন নিষ্পত্তি

কর্মকর্তা/কর্মচারী ও শিক্ষক/শিক্ষিকা

করণীয় নাই

৬নং কলামে বর্ণিত সময়ের মধ্যে উপযুক্ত আদেশ জারি করতে হবে।

৭(সাত) কার্যদিবসের মধ্যে

 

৭.

এলপিআর/লাম্বগ্রান্ট- আবেদন নিষ্পত্তি

কর্মকর্তা/কর্মচারী ও শিক্ষক/শিক্ষিকা

করণীয় নাই

৬নং কলামে বর্ণিত সময়ের মধ্যে উপযুক্ত আদেশ জারি করতে হবে।

৭(সাত) কার্যদিবসের মধ্যে

 

৮.

পেনশন কেস/ আবেদনের নিষ্পত্তি

কর্মকর্তা/কর্মচারী ও শিক্ষক/শিক্ষিকা

করণীয় নাই

৬নং কলামে বর্ণিত সময়ের মধ্যে উপযুক্ত (মঞ্জুরি) আদেশ জারি করতে হবে।

১০(দশ) কার্যদিবসের মধ্যে

 

৯.

জিপিএফ থেকে ঋন গ্রহণ সংক্রান্ত আবেদন নিষ্পত্তি

কর্মকর্তা/কর্মচারী ও শিক্ষক/শিক্ষিকা

করণীয় নাই

৬নং কলামে বর্ণিত সময়ের মধ্যে উপযুক্ত (মঞ্জুরি)আদেশ জারি অথবা প্রযোজ্য ক্ষেত্রে উব্ধর্তন কর্তৃপক্ষ বরাবরে প্রেরণ নিশ্চিত এবং সংশ্লিষ্ট আবেদনকারীকে তা অবহিত করতে হবে।

৫(পাঁচ) কার্যদিবসের মধ্যে

 

১০.

জিপিএফ থেকে চুড়ান্ত উত্তোলন সংক্রান্ত আবেদনের নিষ্পত্তি

কর্মকর্তা/কর্মচারী ও শিক্ষক/শিক্ষিকা

করণীয় নাই

৬নং কলামে বর্ণিত সময়ের মধ্যে উপযুক্ত(মঞ্জুরী) আদেশ জারি করতে হবে।

৭(সাত) কার্যদিবসের মধ্যে

 

১১.

গৃহনির্মাণ ও অনুরুপ আবেদন নিষ্পত্তি

কর্মকর্তা/কর্মচারী ও শিক্ষক/শিক্ষিকা

করণীয় নাই

৬নং কলামে বর্ণিত সময়ের মধ্যে সংশ্লিষ্ট বিভাগীয় উপপরিচালক বরাবরে প্রেরণ নিশ্চিত এবং আবেদনকারীকে তা অবহিত করতে  হবে।

৩(তিন) কার্যদিবসের মধ্যে

 

১২.

পাসপোর্ট করণের  আবেদন নিষ্পত্তি

কর্মকর্তা/কর্মচারী ও শিক্ষক/শিক্ষিকা

করণীয় নাই

৬নং কলামে বর্ণিত সময়ের মধ্যে সংশ্লিষ্ট বিভাগীয় উপপরিচালক বরাবরে প্রেরণ নিশ্চিত এবং আবেদনকারীকে তা অবহিত করতে  হবে।

৫(পাঁচ) কার্যদিবসের মধ্যে

 

১৩.

বিদেশ ভ্রমন/গমন সংক্রান্ত  আবেদন নিষ্পত্তি

কর্মকর্তা/কর্মচারী ও শিক্ষক/শিক্ষিকা

করণীয় নাই

৬নং কলামে বর্ণিত সময়ের মধ্যে আবেদন সংশ্লিষ্ট বিভাগীয় উপপরিচালক বরাবরে প্রেরণ নিশ্চিত এবং আবেদনকারীকে তা অবহিত করতে  হবে।

৫(পাঁচ) কার্যদিবসের মধ্যে

 

১৪.

নৈমিত্তিক ছুটি ব্যতীত বিভিন্ন প্রকার ছুটি সংক্রান্ত   আবেদন নিষ্পত্তি

কর্মকর্তা/কর্মচারী ও শিক্ষক/শিক্ষিকা

করণীয় নাই

৬নং কলামে বর্ণিত সময়ের মধ্যে শিক্ষকদের আবেদন স্বয়ং উপযুক্ত আদেশ প্রদান এবং অন্যগুলি সংশ্লিষ্ট  বিভাগীয় উপপরিচালক বরাবরে প্রেরণ এবং আবেদনকারীকে তা অবহিত করতে  হবে।

৭(সাত) কার্যদিবসের মধ্যে

 

১৫.

শিক্ষকদের বদলির  আবেদন নিষ্পত্তি

(জেলার মধ্যে/আন্তঃউপজেলা)

শিক্ষক/শিক্ষিকা

করণীয় নাই

এসংক্রান্ত প্রচলিত ‘নীতিমালা’ অনুসারে বদলির আদেশ জারিকরণ;কোন কারণে তা সম্ভব না হলে সেটি আবেদনকারীকে অবহিত করতে  হবে।

৭(সাত) কার্যদিবসের মধ্যে

 

১৬.

বকেয়া বিল-এর  আবেদন নিষ্পত্তি

কর্মকর্তা/কর্মচারী ও শিক্ষক/শিক্ষিকা

করণীয় নাই

৬নং কলামে বর্ণিত সময়ের মধ্যে বিল স্বাক্ষর/প্রতিস্বাক্ষর করত স্থানীয় হিসাব রক্ষণ অফিসে প্রেরণ করতে হবে অথবা উর্ব্ধতন কর্তৃপক্ষেও প্রাক্-অনুমোধনের প্রয়োজন হলে সংশ্লিষ্ট বিভাগীয় উপপরিচালকের মধ্যেমে মহাপরিচালক, প্রাশিঅ বরাবরে প্রেরণ এবং আবেদনকারীকে তা অবহিত করতে  হবে।

৩০(ত্রিশ) কার্যদিবসের মধ্যে

 

১৭.

বার্ষিক গোপনীয় অনুবেদন/প্রতিবেদন পুরণ/লিখন(অধস্থন অফিস থেকে প্রাপ্ত)

কর্মকর্তা/কর্মচারী

করণীয় নাই

৬নং কলামে বর্ণিত সময়ের মধ্যে প্রাপ্ত/পুরণকৃত ফরম প্রতিস্বাক্ষরান্তে এসিআর শাখায় প্রেরণ নিশ্চিত ও সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিকে  তা অবহিত করতে  হবে।

৩১শে মার্চ

সংস্থাপন মন্ত্রণালয়ের পরিপত্রের নির্দেশানুযায়ী

১৮.

বার্ষিক গোপনীয় অনুবেদন/প্রতিবেদন পুরণ/লিখন

নিজস্ব দপ্তরের কর্মকর্তা/কর্মচারী

৩১শে জানুয়ারির মধ্যে যথাযথভাবে নির্ধারিত ফরম পুরণ করে উপস্থাপন করতে হবে।

৬নং কলামে বর্ণিত সময়ের মধ্যে পুরণকৃত ফরম অনুস্বাক্ষর করে প্রতিসআক্ষরকারী কর্মকর্তা-র নিকট প্রেরণ নিশ্চিত ও সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিকে  তা অবহিত করতে  হবে।

২৮শে৮ফেব্রুয়ারি

সংস্থাপন মন্ত্রণালয়ের পরিপত্রের নির্দেশানুযায়ী

১৯.

তথ্য প্রদান/ সরবরাহ

দয়িত্ববান যে কোন ব্যক্তি/ অভিভাবক/ ছাত্রছাত্রী

অফিস প্রধানের নিকট পুর্ণ নাম-ঠিকানাসহ সুস্পষ্ট কারণ উল্লেখ করে লিখিত আবেদন/দরখাস্ত করতে হবে।

৬নং কলামে বর্ণিত সময়ের মধ্যে প্রদানযোগ্য তথ্য প্রদান/সরবরাহ করতে হবে; তবে নিজ্ওক্তিয়ারাধীন বিষয় না হলে যতাস্থানে আবেদনের পরামর্শ প্রদান করতে হবে।

সম্ভব হলে তাৎক্ষণিক; না হলে সর্বোচ্চ ৩(তিন) কার্য দিবস।

 

বিজ্ঞপ্তি

ডাউনলোড

আইন ও সার্কুলার